দুপুর ১:১৪,   বৃহস্পতিবার,   ২২শে আগস্ট, ২০১৯ ইং,   ৭ই ভাদ্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ,   ১৯শে জিলহজ্জ, ১৪৪০ হিজরী
 

কুলাউড়ার ইটারঘাটে রাস্তা সংস্কারের দাবিতে মানববন্ধন ও সমাবেশ

স্টাফ রিপোর্টার, এ জে অভি:
মৌলভীবাজার জেলার কুলাউড়া উপজেলার ১১নং শরীফপুর ইউনিয়নের ইটারঘাট-নছিরগঞ্জ বাজার হয়ে কুলাউড়া রোডের মেরামতের কাজ ও চাতলাব্রীজের বেড়ীবাঁধ দিয়ে স্থায়ীভাবে বাঁধভাঙ্গন রোধ করণ সহ বন্যাদ্বারা বিধস্থ শরীফপুর ইউনিয়নে বন্যায় ভেঙে যাওয়া বাঁধ ও সকল রাস্তাঘাট পূর্ননির্মাণের দাবীতে মানববন্ধন ও সমাবেশ করেছে এলাকাবাসী।

আজ বুধবার (২২ মে ২০১৯ইং) দুপুরে শরীফপুর ইউনিয়নের ইটারঘাটে এই মানববন্ধনে ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। মানববন্ধনে অংশ নেন এলাকার বিভিন্ন শ্রেণি পেশার মানুষ এবং বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা।

সরজমিনে দেখা যায়, শরীফপুর ইউনিয়নের চাতলাব্রীজ-ইটারঘাট-কুলাউড়া সড়কের চাতলাব্রীজ থেকে নছিরগঞ্জ বাজার পর্যন্ত রাস্তার অবস্থা খুবই নাজুক। অধিকাংশ স্থানে রাস্তার পিচ, খোয়া উঠে অসংখ্য বড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। সড়কের বিভিন্ন স্থানে ৫০ থেকে ১০০ ফুট পর্যন্ত বড় গর্ত রয়েছে। স্থানীয়রা জরুরি প্রয়োজনে হেঁটে ওই রাস্তা দিয়ে যাতায়াত করে। মাঝেমধ্যে দুয়েকটি অটোরিকশা ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করতে দেখা যায়।

মৌলভীবাজার সরকারি কলেজে শিক্ষার্থী আব্দুল হাকিম বলেন, খুব প্রয়োজন না হলে কোনো চালক ওই সড়ক দিয়ে আসতে চায় না। রাস্তাটির কারণে অনেক কষ্টের মধ্যে আছি। বন্যার প্রায় ১৫ মাস পেরিয়ে গেলেও মেরামতের কোনো উদ্যোগ নেয়নি কর্তৃপক্ষ।

উল্লেখ্য, ২০১৮ সালের জুনে ভয়াবহ বন্যায় মৌলভীবাজার জেলার কুলাউড়া উপজেলার শরিফপুর, হাজীপুর ও টিলাগাও ইউনিয়নে মনু নদীর ভাঙনে প্লাবিত হয়েছে অন্তত শতাদিক এলাকা। এতে শরিফপুর ইউনিয়নের অর্ধশতাদিক রাস্তাঘাট ক্ষতিগ্রস্ত হয়। বন্যা-পরবর্তী দীর্ঘ সময় মাস পেরিয়ে গেলেও এসব রাস্তা সংস্কার না করায় চরম দুর্ভোগে পড়েছে স্থানীয় বাসিন্দারা। এর মধ্যে সবচেয়ে বেহাল চাতলাব্রীজ-ইটারঘাট-কুলাউড়া সড়কটি। বেহাল হওয়ার কারণে সড়কটি দিয়ে এরই মধ্যে যান চলাচল প্রায় বন্ধ হয়ে পড়েছে। এতে দুর্ভোগে পড়েছে ওই সড়ক ব্যবহারকারী অন্তত ১০ গ্রামের ১৫ হাজার মানুষ।


আবহাওয়া

সিলেট
35°

অ্যাপস

সামাজিক নেটওয়ার্ক

© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি