বিকাল ৩:১৩,   শনিবার,   ২১শে সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং,   ৬ই আশ্বিন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ,   ২০শে মুহাররম, ১৪৪১ হিজরী
 

“যেন অন্যায় করে ফেলেছি কোনও!” সিনেমা চুরির অভিযোগে মুখ খুললেন সাহুর পরিচালক

নিউজ ডেস্ক:
প্রায় ৩৫০ কোটি টাকার সাহু ১০ দিনে যদিও বিশ্বব্যাপী ৪০০ কোটি টাকার ব্যবসা করেছে। যার মধ্যে হিন্দি সংস্করণেরই অবদান রয়েছে ১৩০ কোটি টাকা।

বাহুবলী প্রভাসের সিনেমা সাহু । গত মাসে মুক্তি পাওয়ার পর থেকেই একের পর এক তীক্ষ্ণ সমালোচনার মুখে পড়েছে এই সিনেমা। বিদেশি সিনেমা থেকে চুরি করে কোনও উল্লেখ ছাড়াই এই সিনেমা তৈরি নিয়ে সরগরম আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র মহলও। চলচ্চিত্র সমালোচকদের তুমুল কাটাছেঁড়ার মুখে পড়ে জেরবার হওয়ার কয়েক দিন পরে, পরিচালক সুজিথ নেতিবাচক প্রতিক্রিয়া বিষয়ে মুখ খুললেন এবং একটি সাক্ষাত্কারে তিনি বলেন: “আমি সেই ছবিটিই তৈরি করেছি যেটা প্রভাস স্যার, আমার প্রযোজক, এবং আমি বিশ্বাস করেছি। প্রচুর সংখ্যায় দর্শকরা উপস্থিত হচ্ছেন এটি দেখার জন্য, তবে এখনও, আমার সঙ্গে এমন কঠোর আচরণ করা হচ্ছে যেন আমি কোনও অপরাধ করেছি।” প্রসঙ্গত, এই অ্যাকশন-থ্রিলারের স্ক্রিপ্টও লিখেছেন সুজিথ।

সাহুর জন্য সোশ্যাল মিডিয়ায় ট্রোলড হয়েছেন সুজিথ! তিনি বলেন, “সিনেমা সম্পর্কে যে সমস্ত নেতিবাচকতা ছড়ানো হচ্ছে সেসব থেকে দূরে রইতেই আমি মিডিয়া এবং জনসমক্ষে উপস্থিত থাকা থেকে বিরত থাকছি। সিনেমাটিকে হয় পছন্দ করুন বা অপছন্দ করুন, কেন আমাকে টার্গেট করছেন?”

ডেঙ্গু থেকে ক্রমশ সুস্থ হয়ে উঠছেন চলচ্চিত্রের নির্মাতা সুজিথ, তাঁর কথায় তাঁকে একমাত্র উত্সাহ যুগিয়ে যাচ্ছেন সুপারস্টার প্রভাস এবং সিনেমার প্রযোজকরা: “আমার উচিত ছবিটির সাফল্য উপভোগ করা, সে জায়গায় আমি বিছানায় অসুস্থ। সৌভাগ্যক্রমে আমার জন্য প্রভাস স্যার ও প্রযোজকরা সমর্থন যুগিয়ে যাচ্ছেন। আমার জীবনে এটিই একমাত্র ভাল জিনিস। সব সমালোচনা দেখে আমি চুপ করে বসে থাকার সিদ্ধান্ত নিয়েছি।”

ফরাসি পরিচালক জেরোম সাল্লে তাঁর চলচ্চিত্র লার্গো উইঞ্চের নকল করার অভিযোগ এনেছেন সাহুর নির্মাতাদের বিরুদ্ধে। এর আগে অভিনেত্রী লিসা রে অভিযোগ করেছিলেন চিত্রগ্রাহক শিলো শিব সুলেমানের একটি পোস্টারের কাজ চুরির অভিযোগ করেন সাহুর বিরুদ্ধে।

এনডিটিভির পর্যালোচনায়, চলচ্চিত্র সমালোচক শৈবাল চট্টোপাধ্যায় সাহু সিনেমা সম্পর্কে বলেছেন: “গল্প: পুরো জায়গা জুড়ে। চিত্রনাট্য: উন্মাদের মতো তালগোল পাকানো। পরিবেশন: সংখ্যা দ্বারা কঠোরভাবে নির্দেশিত। ফলাফল: ভয়ানক নৃশংস। সংক্ষেপে বলতে গেলে, সাহু সব মিলিয়ে, প্রায় ৩৫০ কোটি টাকার বাজেটে তৈরি করা একটি শূন্য।”

সাহু নিয়ে বক্স অফিসে বেশ উত্তেজনা থাকলেও প্রভাসের বাহুবলী চলচ্চিত্রের ক্ষেত্রে যেমন হয়েছিল তেমন ম্যাজিক ঘটেনি এখানে। প্রায় ৩৫০ কোটি টাকার সাহু ১০ দিনে যদিও বিশ্বব্যাপী ৪০০ কোটি টাকার ব্যবসা করেছে। যার মধ্যে হিন্দি সংস্করণেরই অবদান রয়েছে ১৩০ কোটি টাকা।


আবহাওয়া

সিলেট
36°

অ্যাপস

সামাজিক নেটওয়ার্ক

© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি