দুপুর ১:০২,   সোমবার,   ৯ই ডিসেম্বর, ২০১৯ ইং,   ২৪শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ,   ১০ই রবিউস-সানি, ১৪৪১ হিজরী
 

রাশিয়া থেকে অত্যাধুনিক ‘মিসাইল সিস্টেম’ কিনছে ভারত

নিউজ ডেস্ক:
চীন ও পাকিস্তানের হুমকি মোকাবিলায় সামরিক শক্তি বাড়াতে চায় ভারত। তাই যুক্তরাষ্ট্রের অবরোধ আরোপের ঝুঁকি থাকা সত্ত্বেও তারা রাশিয়ার কাছ থেকে অত্যাধুনিক ‘ট্রায়াম্ফ এয়ার ডিফেন্স মিসাইল সিস্টেম’ কিনছে তারা। পূর্বপরিকল্পনা অনুযায়ী ভারতকে এস-৪০০ ক্ষেপণাস্ত্র সরবরাহ করছে রাশিয়া।

রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন গত বৃহস্পতিবার এ কথা জানিয়েছেন। তিনি বলেন, ভারতকে ভূমি থেকে আকাশে নিক্ষেপযোগ্য এস-৪০০ ক্ষেপণাস্ত্র সরবরাহ করবে রাশিয়া। এস-৪০০ ক্ষেপণাস্ত্র সরবরাহের বিষয়ে বলছি, সব কিছুই হচ্ছে পূর্ব পরিকল্পনা অনুযায়ী। মসৃণ গতিতে চলছে সব।

নরেন্দ্র মোদি বলেন, প্রেসিডেন্ট পুতিনের সঙ্গে আমার চমৎকার এক বৈঠক হয়েছে। এতে ভারত ও রাশিয়ার মধ্যকার সম্পর্কের সব ইস্যুতে বিস্তারিত পর্যালোচনা হয়েছে। বাণিজ্য, নিরাপত্তা ও সংস্কৃতি সহ বিভিন্ন ইস্যুতে ব্যাপকভাবে সহযোগিতা করছে রাশিয়া ও ভারত। ঘনিষ্ঠ এই সম্পর্কের সুবিধা ভোগ করবে আমাদের দেশবাসী।
অত্যাধুনিক এই মিসাইল সিস্টেম ভারতের দিকে ধেয়ে আসা যে কোনো ক্ষেপণাস্ত্র, বোমারু বিমান, ড্রোন, এমনকী স্টেলথ ফাইটার জেটকে চিহ্নিত ও ধ্বংস করতে সক্ষম। ৪০০ কিলোমিটার এলাকা জুড়ে অন্তত ৩০০টি লক্ষ্যবস্তুকে একসঙ্গে চিহ্নিত করতে সক্ষম এই সিস্টেম। সেই সঙ্গে অন্তত তিন ডজন লক্ষ্যবস্তুকে ধ্বংসও করতে পারবে।

ভারতের গুরুত্বপূর্ণ পরমাণু গবেষণা কেন্দ্র ও সরকারি ভবনগুলোতে এই সিস্টেম বসানো হবে। একবার এই মিসাইল সিস্টেম মোতায়েন হয়ে গেলে পাকিস্তান ও চীনের পারমাণবিক ক্ষেপণাস্ত্র আক্রমণের হাত থেকেও অনেকটা নিশ্চিন্ত থাকবে ভারত।

ইতোমধ্যেই ভারতীয় প্রযুক্তিতে ‘মিসাইল শিল্ড’ তৈরি করে সামরিক ক্ষেত্রে আমেরিকা ও রাশিয়ার মতো প্রথম সারির দেশগুলোর সমকক্ষ জায়গায় পৌঁছে গেছে ভারত। ভারতের নিজস্ব ইন্টারসেপ্টর মিসাইল শত্রুপক্ষের ছোড়া ব্যালিস্টিক মিসাইলকে ভূপৃষ্ঠ স্পর্শ করার ১০০ কিলোমিটার আগেই ধ্বংস করতে সক্ষম।


আবহাওয়া

সিলেট
25°

অ্যাপস

সামাজিক নেটওয়ার্ক

© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি