বিকাল ৩:৩৫,   শনিবার,   ২১শে সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং,   ৬ই আশ্বিন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ,   ২০শে মুহাররম, ১৪৪১ হিজরী
 

সড়ক পার হতে হয় বাঁশের সাঁকোতে!

অনলাইন রিপোর্ট:
চলতি বছরের বন্যায় জামালপুর জেলার দেওয়ানগঞ্জ-সানন্দাবাড়ি সড়কের প্রায় ৩৬ কিলোমিটার পাকা সড়কে অসংখ্য খানাখন্দের সৃষ্টি হয়েছে। বিকল্প কোনও রাস্তা না থাকায় চরম দুর্ভোগে পড়েছে এলাকাবাসী। নিজেদের তৈরি করা বাঁশের সাঁকোর ওপর দিয়ে কোনোমতে রাস্তা পার হচ্ছেন তারা। খানাখন্দ সৃষ্টি হওয়ায় এই সড়ক দিয়ে চলাচল করতে পারে না কোনও যানবাহন। তাই দ্রুত এ সড়ক সংস্কারের দাবি জানিয়েছে এলাবাসী।

এলাকাবাসী জানায়, দেওয়ানগঞ্জ-সানন্দাবাড়ি সড়কের বাহাদুরাবাদ থেকে কাঠারবিল ও তারাটিয়া হয়ে সানন্দাবাড়ি পর্যন্ত দীর্ঘ ৩৬ কিলোমিটার রাস্তায় অন্তত ১০টি বাঁশের সাঁকো তৈরি করছে এলাকাবাসী। এসব সাঁকোর ওপর দিয়ে পথচারীরা কোনোমতে যাতায়াত করেন।

এলাকায় সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, দেওয়ানগঞ্জ-সানন্দাবাড়ি সড়কটি বাহাদুরাবাদ ইউনিয়নের কান্দিরগ্রাম এলাকায় পাকা সড়ক ভেঙে কয়েকটি স্থানে খানাখন্দের সৃষ্টি হয়েছে। কান্দিরগ্রাম বটতলায় নতুন খালের ওপর অস্থায়ীভাবে স্থানীয়রা বাঁশের সাঁকো নির্মাণ করেছেন। তারা সেখানে পথচারীদের কাছে পারাপারের জন্য পাঁচ টাকা করে ভাড়া নিচ্ছেন।

কান্দিরগ্রাম সাঁকোর পাশে বটতলায় রাস্তার ওপর সারিবদ্ধভাবে দাঁড়িয়ে আছে কমপক্ষে ৩০টি ব্যটারিচালিত অটোরিকশা। ওইসব ভাঙা রাস্তার ছবি তুলতেই অটোরিকশা চালক আলামিন, আবুল হোসেন, শাহীন ও সোহেল রানা জানান, উপজেলার কান্দির গ্রাম ও কাঠারবিল এলাকায় তাদের বাড়ি। তারা দেওয়ানগঞ্জ-সানন্দাবাড়ি সড়কে অটোরিকশা চালিয়ে প্রায় হাজার টাকার ওপরে দৈনিক আয় করতেন। এখন পুরো রাস্তাই ভাঙা থাকায় তারা যাতায়াত করতে পারছেন না। ফলে পরিবার নিয়ে কষ্টে দিন কাটছে তাদের।

তারাটিয়া বাজার এলাকার অটোরিকশা চালক দুলাল মিয়া জানান, দেওয়ানগঞ্জ-সানন্দাবাড়ি সড়কের কাঠারবিল, ঝালোরচর, সবুজপুর, মিতালি বাজার, তারাটিয়া বাজারসহ জলব্রিজ পর্যন্ত রয়েছে চারটি বাঁশের সাঁকো এবং অসংখ্য ভাঙা আর খানাখন্দে ভরা পাকা রাস্তা। এসব রাস্তা দিয়ে কোনও যানবাহন চলে না। তাই তারা তাদের অটোরিকশা কান্দির গ্রাম এনেছেন। এই ছোট সড়কে চাহিদার তুলনায় বেশি পরিমাণ অটোরিকশা চালিয়ে যা আয় করেন তাতে সংসার চালোনো কঠিন হয়ে পড়ছে তাদের।

পথচারী সামাদ মিয়া, আব্দুল বারেক, শ্রী পরেশ ঘোষসহ অনেকেই জানান, সানন্দবাড়ি থেকে দেওয়ানগঞ্জ উপজেলা সদরে আসার একমাত্র উপায় পায়ে হেঁটে যাতায়াত করা। তারা কাঠারবিল এবং তারাটিয়া বাজার এলাকা থেকে দীর্ঘপথ পায়ে হেঁটে আবার কোথাও কোথাও অটোরিকশায় চেপে এসেছেন।

দেওয়ানগঞ্জ উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা এনামুল হাসান বলেন, ‘এবারের বন্যায় দেওয়ানগঞ্জের মোট ৮টি ইউনিয়নসহ ১টি পৌরসভার ১৬৩টি গ্রাম বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত প্রাথমিক জরিপে এ উপজেলায় প্রায় ১৫০ কিলোমিটার পাকা সড়ক এবং ৫০টি ব্রিজ-কালভার্ট ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এছাড়াও যমুনা নদী ভাঙনে ২৮০টি পরিবার বসতভিটা হারিয়েছেন।’

স্থানীয় সরকার প্রকৌশলী বিভাগের উপজেলা প্রকৌশলী মো.আরিফ হোসেন বলেন, ‘দেওয়ানগঞ্জ উপজেলায় চলতি বছর বন্যায় ১৩৩ কিলোমিটার পাকা রাস্তা এবং ১৫০ কিলোমিটার কাঁচা রাস্তা, ৬৫টি ব্রিজ কালভার্ট, বেশ কিছু শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। সবকিছু মিলে প্রায় দেড়শ’ কোটি টাকা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।’


আবহাওয়া

সিলেট
36°

অ্যাপস

সামাজিক নেটওয়ার্ক

© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি