মার্চ 4, 2024

মায়ানমারে সোনালী ব্যাংকের অ্যাকাউন্ট বন্ধ চায় যুক্তরাষ্ট্র

মায়ানমারে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র দ্বারা দুটি ব্যাংকের অ্যাকাউন্ট বন্ধ করার প্রস্তাবনা সামরিক শাসনাধীন মায়ানমার সরকারের দিকে প্রেরণ করা হয়েছে। এই দুটি ব্যাংক হলো মায়ানমার ফরেন ট্রেড ব্যাংক এবং মায়ানমার ইনভেস্টমেন্ট অ্যান্ড কমার্সিয়াল ব্যাংক। যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিষ্ঠিত নিষেধাজ্ঞার মধ্যে এই দুটি ব্যাংকও রয়েছে।

মার্কিন দূতাবাস ঢাকায় বাংলাদেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে চিঠি পাঠিয়েছে, যার মধ্যে সোনালী ব্যাংকের অ্যাকাউন্ট বন্ধের আবেদন করা হয়েছে। এই চিঠির মাধ্যমে ৩ আগস্ট পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সোনালী ব্যাংককে আবেদন জানিয়েছে যে মার্কিন সরকারের নিষেধাজ্ঞার আওতায় এই ব্যাংকের অ্যাকাউন্ট বন্ধ করতে হবে।

মায়ানমারের ফরেন ট্রেড ব্যাংকে সোনালী ব্যাংকের ১৭ হাজার ডলার এবং মায়ানমার ইনভেস্টমেন্ট অ্যান্ড কমার্সিয়াল ব্যাংকে ২ লাখ ডলার জমা রয়েছে। সোনালী ব্যাংকের কর্মকর্তারা জানাচ্ছেন যে, এই টাকাগুলি এখন জব্দ অবস্থায় আছে এবং তা স্থানান্তর বা তুলন করার কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি।

যুক্তরাষ্ট্র সরকার এই প্রস্তাবনা দেয়ার মাধ্যমে মায়ানমারের সরকারের প্রতি তাদের প্রতিক্রিয়া জানাতে চেষ্টা করছে, এবং তাদের আয়ের উৎসে আঘাত হানতে বৃহত্তম এই দুই ব্যাংকের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করলেও।

এই ঘটনা আলোচনা সৃষ্টি করে মায়ানমার ও যুক্তরাষ্ট্রের সম্প্রদায়িক ও আর্থিক সংক্রমণের প্রস্তাবনা এবং দুটি দেশের সম্পর্কে নতুন দক্ষতা যোগ করে। মায়ানমারে সহিংসতা ও অভ্যুত্থানের আপত্তি চলছে, যা বিশেষভাবে মায়ানমারের ব্যাংকের অর্থের স্থানান্তর বা তুলন করায় প্রতিবন্ধক।

এই প্রস্তাবনার মধ্যে বাংলাদেশের সাথে মায়ানমারের দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্যের প্রস্তাবনাও আসে। মায়ানমার থেকে বাংলাদেশে আসে পণ্য মধ্যে কাঠ, মাছ, আদা, পেঁয়াজ, সুপারি, নারকেল ইত্যাদি রয়েছে, এবং মায়ানমার বাংলাদেশে আসে আলু, বিস্কুট, হোসিয়ারি এবং প্লাস্টিক পণ্য।

সংক্রমণে বৃদ্ধির সাথে মায়ানমারের অর্থনীতি পরিস্থিতি সম্প্রদায়িক বিপ্রতীপ করছে এবং যুক্তরাষ্ট্রের পক্ষ থেকে এই অ্যাকশন সামর্থ্য প্রদর্শন করছে। মায়ানমারে বেশি সহিংসতা ও অভ্যুত্থানের কারণে, যুক্তরাষ্ট্রের দ্বারা দুই দেশের ব্যাংকের উপর নিষেধাজ্ঞা প্রদান করা হয়েছে, যা এই ঘটনা নতুন দায়িত্ব দেওয়ার প্রতি উদ্দীপনা তৈরি করে।